April 12, 2024, 10:41 am
শিরোনাম :
রোজাদার ব্যাক্তিদের পাঁচ বছর ধরে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করে আসছে জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক পিরোজপুরের সুমন সিকদার পিরোজপুরে আজমল হুদা নিঝুম এর ব্যাক্তিগত সহায়তায় হিলফুল ফুজুল রমজান মাস ব্যাপী টানা ইফতার বিতরণ রায়পুর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভিজিএফের চাউল আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে প্রশাসনকে পিটিয়ে ফাঁড়ির থেকে ছেলেকে নিয়ে গেলেন এমপি বগুড়া সদরের মাটিডালীতে যুব ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রী বিতরণ পিরোজপুরে পুলিশ পদে চাকুরি পেয়েছে ২৮ জন ঢাকা থেকে অপহৃত শিশু পিরোজপুরে উদ্ধার নড়াইলে এসএসটিএসের ইফতার সামগ্রী বিতরণ দিনাজপুর বিরামপুরে গণহত্যা দিবস’র আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত বিরামপুরে ট্রান্সফরমারসহ চোর আটক

বগুড়া শাজাহানপুরে পত্তন ছাড়াই সরকারি পুকুর চাষ পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিচ্ছেন ব্যাবসায়ী ও ভূমি অফিস।

মিজানুর রহমান মিলন-শাজাহানপুর বগুড়া প্রতিনিধি।
  • সময়: Wednesday, November 8, 2023,
  • 20 Time View

রিপোর্টারঃ মিজানুর রহমান মিলন,শাজাহানপুর বগুড়া প্রতিনিধি-বগুড়া শাজাহানপুর উপজেলার খড়না ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ৬বিঘার বেশি আয়তনের পুকুরটি পত্তন ছাড়াই চাষ করছেন স্থানীয় ৩ব্যক্তি।বিষয়টি অস্বীকার করে উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি)বলছেন পুকুরটি তাঁরা নিজেরাই চাষ করছেন।পুকুরটি পত্তন দিলে বছরে কমপক্ষে ২লক্ষ টাকা সরকার রাজস্ব পাবে বলছেন উপজেলার বিভিন্ন মৎস ব্যাবসায়ীরা।পুকুর চাষকরা ৩ব্যাক্তি একেক জন একেক কথা বলছেন।সূত্রঃ জাতীয় দৈনিক আজকের পত্রিকা।পুকুর চাষ করা ব্যক্তিরা হলেন খড়না ইউনিয়নের খড়না নয়াপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলাম(৪২),খড়না সরকারপাড়া গ্রামের মাসুদুজ্জামান মিটু(৪৫) এবং খড়না ধাওয়াপাড়া গ্রামের নজরুল ইসলাম।(৫০)এদের মধ্যে নজরুল ইসলাম উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি।

সরেজমিনে গিয়ে কথা হয় পুকুরপাড়ে বাসিন্দাদের সাথে। অন্তত ১০জন বাসিন্দা বলেন,গত ২বছর ধরে পুকুরটি চাষ করছেন স্থানীয় শহিদুল ইসলাম,মাসুদুজ্জামান মিটু এবং নজরুল ইসলাম।অনেক বড় পুকুর এবং প্রচুর মাছ হয়।

খড়না ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপসহকারী কর্মকর্তা মোঃ সুরুমান মাসুদ বলেন,খড়না ভূমি অফিসের সাথের পুকুরটির মালিক ভূমি অফিস।পুকুরটি কারা কিভাবে চাষ করছেন তা আমার জানা নাই।এ বিষয়ে আরো কিছু জানতে চাইলে উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি)এর সাথে কথা বলেন।খড়না ইউনিয়ন ভূমি অফিসের একজন কর্মচারী মোঃ মামুন বলেন,পুকুরটির আয়তন ৬বিঘার উপরে।সঠিক মাপ নথি দেখে জানাতে পারবো।তবে এরপর এ বিষয়ে আর কথা বলেননি তিনি।জানতে চাইলে পুকুর চাষ করা ব্যাক্তিদের একজন শহিদুল ইসলাম বলেন, আসলে আমি তো চাষ করিনা।পুকুর চাষ করে মাসুদুজ্জামান মিটু এবং নজরুল ইসলাম।আমি তাঁদের সাথে আছি।মূলত নজরুল ইসলাম পুকুরটি নিয়ে দিয়েছেন। ২বছর বা আরেকটু বেশি সময় ধরে আমরা চাষ করছি।

মাসুদুজ্জামান মিটু মোবাইল ফোনে বলেন,ভূমি অফিসের পুকুরটি চাষ করতে আমারা বছরে ২০লক্ষাধিক টাকা খরচ করেছি।লাভ সেরকম হয়না।বিভিন্ন জন এসে টাকা,মাছ চায়।সরকারি ডাক না থাকলেও বিভিন্ন জনকে বছরে ৫লক্ষাধিক টাকা দিতে হয়।

পুকুর চাষ করা আরেক ব্যাক্তি নজরুল ইসলাম বলেন, ভূমি অফিসের পুকুর আমরা তত্বাবধান করছি।কাউকে টাকা পয়সা দেয়া লাগেনা,শুধু মাছ দেই। অফিসের কেউ চাইলে তো না করা যায়না।জানতে চাইলে উপজেলার পুরাতন মৎস চাষীদের একজন নিত্যানন্দ দাস বলেন, ৬বিঘার উপরে ভূমি অফিসের ওই পুকুর বছরে কমপক্ষে ২লক্ষ টাকায় পত্তন নেয়া যাবে।সব বাদ দিয়েও বছরে কমপক্ষে ৪লাখ টাকা লাভ করা যাবে।

জানতে চাইলে শাজাহানপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি)সানজিদা মুস্তারী আজকের পত্রিকাকে বলেন, পুকুরটা ভূামি অফিসের।আমরা নিজেরাই সেখানে মাছ ছেড়েছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খরব
এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা,ছবি,অডিও,ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি। © All rights reserved © 2023
ডিজাইন - রায়তা-হোস্ট সহযোগিতায় : SmartiTHost
durantotv24